যে কারনে শিক্ষককে হত্যা করেছে ‘সেই শিক্ষার্থী’

দেবীগঞ্জ সংবাদ ডেস্ক
আপডেটঃ ১৩ জুলাই, ২০২২ | ৭:৪০ 277 ভিউ
দেবীগঞ্জ সংবাদ ডেস্ক
আপডেটঃ ১৩ জুলাই, ২০২২ | ৭:৪০ 277 ভিউ
Link Copied!

বুধবার আশুলিয়ার হাজি ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমারকে স্ট্যাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই শিক্ষার্থী আশরাফুল আহসান (জিতু)। এ ঘটনায় সেই শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করা হয়।

 

প্রেমে বাধা দেওয়ার জন্যই ক্রিকেট স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে  শিক্ষক উৎপল কুমারকে (সরকার) হত্যা করেন শিক্ষার্থী আশরাফুল আহসান (জিতু)। বুধবার হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি জিতু (১৯) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ কথা বলেন।

 

ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব হাসানের খাসকামরায় ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় এই জবানবন্দি দেন আসামি জিতু। রাজীব হাসান জবানবন্দি রেকর্ড শেষে আশরাফুলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

 

ওই আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আনোয়ারুল কবির বাবুল গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

গত ২৫ জুন সাভারের আশুলিয়ার হাজী ইউনুস আলী স্কুল ও কলেজে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে স্টাম্প দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করেন জিতু। তিনি ওই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিক্ষক উৎপল কুমারের মৃত্যু হয়। ঘটনার পরপরই আশরাফুল পালিয়ে যান। গত বুধবার গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব পরে আশরাফুলের জন্মসনদ ও জেএসসির সনদ পরীক্ষা করে শিশু আদালত বলেছেন, তিনি প্রাপ্তবয়স্ক। পরে তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

 

আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জিতু বলেছেন, তার প্রেমিকা কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। অনেক দিন থেকে তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক। দুজন একসঙ্গে কলেজে ঘোরাঘুরি করতেন। হত্যাকাণ্ডের তিন দিন আগে জিতু তার প্রেমিকাকে সঙ্গে নিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে কেক খাচ্ছিলেন। তখন সেখানে আসেন কলেজ শিক্ষক উৎপল কুমার। তিনি জিতু ও তার প্রেমিকাকে বকাবকি করেন। তখন জিতুও শিক্ষক উৎপলকে গালিগালাজ করেন।

 

জবানবন্দিতে জিতু আরও বলেন, এ ঘটনার পর শিক্ষক উৎপল কুমার জিতু ও তার প্রেমিকার অভিভাবকের কাছে অভিযোগ দেন। এর জের ধরে আশরাফুলের প্রেমিকা কলেজে আসা বন্ধ করে দেন। পরে জিতু পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী, বাড়ি থেকে একটি ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প নিয়ে সেদিন কলেজে আসেন। শ্রেণিকক্ষের পেছনে সেটি লুকিয়ে রাখেন। কলেজ মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালে শিক্ষক উৎপল কুমারকে মাঠের এক কোণে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে স্টাম্প দিয়ে অতর্কিত তাকে বেধড়ক আঘাত করেন। শিক্ষক উৎপলকে প্রথমে পেছন থেকে মাথায় আঘাত করা হয়। তখন অপর কলেজশিক্ষক শরীফ জিতুকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। তবে মাটিতে লুটিয়ে পড়া শিক্ষক উৎপলকে সাহায্য করার জন্য এগিয়ে গেলে জিতু পালিয়ে যান।

 

জবানবন্দিতে জিতু আরও বলেন, তিনি পালিয়ে প্রথমে মানিকগঞ্জ যান। পরে চলে যান পাবনায়। পরে সেখান থেকে গাজীপুরের শ্রীপুরে আসেন।

 

এর আগে গতকাল জিতু আহসানের বাবা উজ্জ্বল হোসেন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি এখন কারাগারে আছেন।

 

 

আর.ডিবিএস

শীর্ষ সংবাদ:
নৌকাডুবির শোক কাটিয়ে দূর্গা পূজার প্রস্তুতি সম্পন্ন ইউক্রেনের চার অঞ্চলকে রাশিয়ার অন্তর্ভূক্ত করার ঘোষণা দিল পুতিন বাবার লাশের অপেক্ষায় ৩ বছরের দিপু প্রতিমা বিসর্জনের আগেই ৭১ সনাতনীর দেহ ভাসলো করতোয়ায়  নৌকাডুবির ঘটনায় আজ মিলেনি একটিও মরদেহ মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাথে আইজিপির বিদায়ী সাক্ষাৎ নতুন সেতু হতে যাচ্ছে আউলিয়া ঘাটে তেঁতুলিয়ায় সড়ক আইনে ৪ ব্যক্তিকে জরিমানা নৌকাডুবির ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে সরকারি সহায়তা প্রদান করতোয়ায় নৌকাডুবির ঘটনায়, নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন আমিরে জামায়াত নৌকাডুবিতে নিহতদের পরিবারকে রেলমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তা পঞ্চগড়ে নৌকাডুবির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেন জাসদ সাধারণ সম্পাদক এক মাস পর উদ্ধার হলো নিখোঁজ কিশোরের খণ্ডিত লাশ দেবীগঞ্জে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত করতোয়ায় নৌকাডুবির ঘটনায় তদন্ত কমিটির সময় বৃদ্ধি নৌকাডুবিতে বাবা-মা সহ পরিবারের ৬ জনকে হারিয়ে নি:স্ব দুই ভাই পঞ্চগড়ে নৌকাডুবির ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৫, নিখোঁজ অন্তত ১০ জন দেবীগঞ্জে ফারিহার প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত করতোয়ার নৌকাডুবি, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫০ পঞ্চগড়ে নৌকাডুবির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন রেলপথ মন্ত্রী ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী