জাওয়াহিরিকে যেভাবে হত্যা করে সিআইএ

অনলাইন ডেস্ক
আপডেটঃ ২ আগস্ট, ২০২২ | ৪:১৯ 170 ভিউ
অনলাইন ডেস্ক
আপডেটঃ ২ আগস্ট, ২০২২ | ৪:১৯ 170 ভিউ
Link Copied!
ছবি : বিবিসি

আফগানিস্তানের কাবুলে মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন আল কায়েদার প্রধান আয়মান আল-জাওয়াহিরি। রোববার (৩১ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ ড্রোনের মাধ্যমে ওই হামলা চালায় ।

 

সোমবার মার্কিন প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে, আফগানিস্তানে চালানো একটি অভিযান সফল হয়েছে। ওই অভিযানের বিষয়ে কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বিস্তারিত জানাবেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

 

মার্কিন প্রশাসনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেছেন, জাওয়াহিরি অনেক বছর ধরে লুকিয়ে ছিল এবং তাকে খুঁজে বের করে হত্যা করার ঘটনাটি কাউন্টার-টেররিজম ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর ‘সতর্ক, ধৈর্য্যশীল এবং অবিচল’ কাজের ফল।

 

আরো পড়ুন : ভারতকে হারালো বাংলাদেশের কিশোররা

 

পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে ওই মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র সরকার একটি নেটওয়ার্কের বিষয়ে সজাগ ছিল আর তাদের মূল্যায়ন ছিল, সেটি জাওয়াহিরিকে আশ্রয় দিচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে সরে আসার পর গত এক বছর ধরে আফগানিস্তানে আল কায়েদার উপস্থিতির ইঙ্গিতগুলোর ওপর নজর রাখছিলেন মার্কিন কর্মকর্তারা।

 

চলতি বছর গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জাওয়াহিরির পরিবারকে শনাক্ত করে। এদের মধ্যে ছিলেন তার স্ত্রী, তার কন্যা ও ওই নারীর সন্তানরা। তাদের কাবুলের একটি নিরাপদ বাড়িতে রাখা হয়েছিল। পরে ওই একই বাড়িতে জাওয়াহিরির উপস্থিতিও শনাক্ত হয়।

 

কয়েক মাসের মধ্যে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা আরও নিশ্চিত হয়ে ওঠেন যে তারা কাবুলের ওই নিরাপদ বাড়িতে জাওয়াহিরিকে সঠিকভাবেই শনাক্ত করেছেন। এপ্রিলের প্রথমদিকে তারা মার্কিন প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি জানাতে শুরু করেন। পরে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলেভান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে বিষয়টি জানান।

 

আরো পড়ুন : মিয়ানমারে জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ছে আরও ৬ মাস

 

মার্কিন কর্মকর্তারা জাওয়াহিরি যেখানে অবস্থান করতেন সেই নিরাপদ বাড়ির একটি স্কেল মডেল তৈরি করেন। পরে সেটি প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে দেখাতে হোয়াইট হাউসের সিচুয়েশন রুমে নেওয়া হয়। তারা জানত যে জাওয়াহিরি বাড়ির ব্যালকনিতে বসে থাকতেন।

 

ওই ভবনের কাঠামোর জন্য কোনো হুমকি তৈরি না করে এবং বেসামরিক ও জাওয়াহিরির পরিবারের সদস্যদের ঝুঁকি সর্বনিম্ন রেখে কীভাবে জাওয়াহিরিকে হত্যা করতে অভিযান চালানো যায় তা নিশ্চিত করতে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা ওই নিরাপদ আস্তানার গঠন ও ধরন অনুসন্ধান করার পাশাপাশি এর বাসিন্দাদের যাচাই করে দেখেন বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

 

 আরো পড়ুন : তুরস্কের সংকেতের অপেক্ষায় আছে ইউক্রেন

 

পরের সপ্তাহগুলোতে প্রেসিডেন্ট বাইডেন গোয়েন্দা তথ্যগুলো যাচাই ও পদক্ষেপ নেওয়ার সেরা উপায় নিয়ে আলাপ করতে প্রধান উপদেষ্টাদের ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ১ জুলাই হোয়াইট হাউসের সিচুয়েশন রুমে সিআইএ-র পরিচালক উইলিয়াম বার্নসসহ মন্ত্রিসভার সদস্যরা প্রস্তাবিত একটি অভিযানের বিষয়ে বাইডেনকে অবহিত করেন।

 

ওই বৈঠকে বাইডেন বহু প্রশ্ন করেন এবং গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর তৈরি করা ওই নিরাপদ আস্তানার একটি মডেল নিবিড়ভাবে পরীক্ষা করে দেখেন। তিনি আলো, আবহাওয়া, নির্মাণ উপকরণসহ যে যে বিষয়গুলো অভিযানের সাফল্যের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলতে পারে সেগুলো নিয়ে প্রশ্ন করেন বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

কাবুলে হামলা চালালে সম্ভাব্য যে প্রভাব সৃষ্টি হবে বাইডেন তাও বিশ্লেষণ করে দেখার অনুরোধ করেছিলেন।

 

ওই কর্মকর্তা জানান, ২৫ জুলাই প্রেসিডেন্ট বাইডেন চূড়ান্ত ব্রিফিংয়ের জন্য মন্ত্রিসভার প্রধান সদস্যদের ও উপদেষ্টাদের ডাকেন এবং জাওয়াহিরিকে হত্যা করা হলে তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে কী ধরনের প্রভাব পড়বে তা নিয়ে আলোচনা করেন।

 

ওই রুমে থাকা অন্যান্যদের মতামত নেওয়ার পর বাইডেন বেসামরিকদের নিহত হওয়ার ঝুঁকি সর্বনিম্নে রাখার শর্তে ‘এটি সুনির্দিষ্ট উপযোগী বিমান হামলার’ অনুমোদন দেন।

 

আরো পড়ুন : গ্ৰেপ্তার হলেন রাহুল গান্ধী

 

রোববার সূর্যোদয়ের সময় জাওয়াহিরি আফগানিস্তানের কাবুলের একটি বাড়ির ব্যালকনিতে আসেন এবং সেখানে অবস্থান করেছিলেন। যেমনটি মার্কিন গোয়েন্দারা তাদের পরিকল্পনায় উল্লেখ করেছিলেন।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক মার্কিন কর্মকর্তা বলেন- এ দিন একটি মার্কিন ড্রোন আল-কায়েদা নেতাকে লক্ষ্য করে দুটি হেলফায়ার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। ওই হামলায় ব্যালকনিতে একা দাঁড়িয়ে থাকা জাওয়াহিরি নিহত হন।

 

 

আর.ডিবিএস

শীর্ষ সংবাদ:
ট্যাংক ধ্বংস করলেই মিলবে ৭৫ লাখ টাকা পুরস্কার! ফেসবুক লাইভে এসে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা দেবীগঞ্জে ইকরা মডেল মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত  পঞ্চগড়ে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ ইসরাইলের হামলায় প্রাণ হারালো ৯ ফিলিস্তিনি এক মুরগির দাম ২ লাখ টাকা! দেবীগঞ্জে শেখ কামাল এ্যাথলেটিকস প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত দেবীগঞ্জে কৃষি জমির পাশ থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার ফেব্রুয়ারির ১৯ তারিখ রাষ্ট্রপতি নির্বাচন : ইসি দেবীগঞ্জে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বৈদ্যুতিক হালকা সেচ প্রকল্পের সেচ কার্যক্রম উদ্বোধন  বর টাকা গুনতে না পারায় বিয়ে ভেঙে দিলেন কনে! মটরসাইকেলে ‘বন্ধুর’ সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর ফ্রি-ফায়ার খেলার সময় ট্রেনে কাটা পড়ে যুবকের মৃত্যু নিউজিল্যান্ডের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ক্রিস হিপকিনস যে কারণে পিটিআই প্রধানের পদ ছাড়ছেন ইমরান খান পঞ্চগড়ে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে অর্ধ সহস্রাধিক শীতার্তের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ রোহিঙ্গা ক্যাম্প একসময় আমাদের জন্য বিষফোঁড়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শৃঙ্খলার পাশাপাশি সবুজের নান্দনিকতায় ফিরেছে দেবীগঞ্জ ভূমি অফিস দেবীগঞ্জে ভোক্তার অভিযান; তিন প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ড স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে হাইকোর্টে তলব